about us

welcome to Blue Card

Buying products from a fixed price store always gives us a feeling of getting ripped off as there’s always the doubt about the justification of the price being tagged on a product by the outlet. On the other hand, fixed price store owners see it redundant to leave room for bargain as they believe they sell their products at a small profit margin. They think, “Yes, I have put a price on it, but the market is open for customers. They are free to buy the product from another store if they can get it for less there.” This leaves neither the consumers not the owners very satisfied or confident about the sell or purchase of a product. Here at Blue Card, we have established a middle ground for both owners and consumers where they can have peace of mind and satisfaction when selling or purchasing a product. Blue Card affiliated fixed price store owners offer consumers a special discount on their products. It doesn’t only ensure the consumers that they are getting the best deal without having to browse other stores; it also ensures their satisfaction and growing trust in the stores as the owners eagerly waits for his customers to come back to his store repeatedly. Blue Card benefits both parties in two different ways

1. Consumers may avail discount from 1000 fixed price outlets.
2. Blue Card affiliated stores will incur more sales as purchasers will be more inclined toward buying from those stores in order to avail special discount. Blue Card has initiated contracting 1000 outlets including but not limited to hospitals, fashion outlets, pharmacies, restaurants, sweetmeat shops, beauty parlors, consumer electronic store and educational institutes. By showing the Blue Card to any of its affiliated fixed price stores, a purchaser can get a certain discount (as vouched by the outlet) on the fixed price of a product sold at the store. Details are given on the booklet (which is provided with every single card), on our App and our website as well. We have designed the app in such a way so that it is very helpful for any customer to know about any specific outlet they would look for. Overall, our outlets cover almost all the necessities that an individual requires (except House Rent, Conveyance and so on). On current basis, we have 37 categories of outlets and we are on plans every day to extend the number. We already have spread our range till Gazipur, Narayanganj and Savar etc. Blue Cards are available on our selected outlets out there too. We are working on the fact that by 2019 Blue Card will cover the entire country and not only Dhaka City.

FACILITIES YOU WILL ENJOY WHILE USING BLUE CARD
On average, our outlets are willing to pay around 10% discount to our customers; some may provide more or less. If an affiliated store has announced 10% discount on their products bought using Blue Card and you purchase taka 2000 worth of goods from it, you will get an instant discount of taka 200. In other words, the 200 taka you spend on the Blue Card is paid off right there. Also you keep enjoying discounts at any of the 1000 fixed-price-outlets affiliated with Blue Card for the rest of the year. It is hard to find Dhaka city dwellers who don’t spend taka 10,000 a month on buying clothes, eating at restaurants, buying medicines and other goods. It means, in Dhaka, a person who doesn’t spend at least 1,20,000 a year is also rare to find. With that in mind, buying Blue Card for taka 200 will easily allow you to save taka 10,000 to 15,000 over a year.

HOW TO BE A REGISTERED CUSTOMER OF BLUE CARD
1. Go to the message option in your phone and type in ALL CAPS “BLUE ON” followed by a [SPACE].
2. Type in the 16 digit code given in card followed by a [SPACE].
3. Write your short name (like: Ashfaq)
4. Send it to 26969.
5. Almost immediately you’ll be receiving a text confirming your registration.
6. Call 09 666 724 724 if any sort of problem experienced (From 11:00 am till 8:00 pm).
7. You may also take help from our website and Facebook page (From 11:00 am till 8:00 pm).
8. You may also mail us in customer@bluecardbd.com complain@bluecardbd.com
9. From the time you activate the card, you will be able to enjoy the discounts for 1 year long. On 11th month, you’ll be receiving an SMS saying that your subscription will be over in a month. For renewal you only need to pay taka 100 (instead of taka 200) for another year. You could send us the money in any legal way possible.

HOW CAN YOU GET BLUE CARD
Blue Card was officially released in market on 14th July, 2018 through a press release. Our salesmen are selling cards throughout Dhaka city. Doesn’t matter if you don’t find them. You may call at 09 666 724 724 to know how to register. Throughout the Dhaka city we’ve got 27 points where our salesman sell cards. We are proceeding on plans to sell cards from at least 100 points in Dhaka city. We could send you our selling points through mail. We’re also working on our online services, so that you could also order Blue Card online in the near future. We are working all day and night on how proficiently we could deliver cards to your doorstep just if you have taka 200 and the will to use it. Please stay with us.

CORPORATE SALES
Just after 15 days of our official launch, we had started out with corporate sales. Numerous corporate companies have contacted us to buy our cards and we are generously grateful towards them. Some of them are in the pipeline too. These companies are going to present Blue Card as a gift to their moderate earning employees during special occasions which they could use to get discount from 1000 outlets all over Dhaka City. On these special occasions, if any company orders more than 500 cards we print their taglines and logo in the card. We are also providing with other facilities throughout discussion. *An example is given for a Blue Card on Victory Day*

WE WILL BE ABOLISHING GREETING CARDS WITHIN 2 YEARS
On any special day, exchanging greeting cards with our beloved ones, friends, colleagues and acquaintances is a common but old practice even though the emotional baggage that ships with it often makes it awkward for us to get rid of them even though they keep piling up in our desks or drawers. At present, many commercial organizations have developed the culture of giving special greeting cards to their employees and clients on special days and occasions. It’s time to rethink the way of exchanging greetings so it brings real value and not create such emotional baggage. Blue Card has got a few observations regarding this. Hopefully, you’ll not disagree with our observations.

1. A standard quality greeting card costs more than a Blue Card.
2. Delivering the card to the right person incurs more expense.
3. Also, usually Greeting card loses its utility as soon as the special day is over.
4. As days pass by, you get more greetings cards, and they get piled up on your desk or whatever until you decide to get rid of them.

Blue Card can be a traditional greeting card with real life value and utility. The reasons why you should use Blue Card instead of greeting card:
1. Blue Card costs less than a standard greeting card.
2. For corporate organizations, we deliver Blue Card with company’s logo and taglines printed on it.
3. The person you are giving the card will enjoy its usefulness even after the special day or occasion is over.
4. Blue Card will never be just another card on the pile of cards about to get trashed. You can easily digitalize the card and use it thereafter.
5. Using this card, you will be able to avail discounts from about 1000 outlets across Dhaka city. Employees could really benefit from that.
6. The card will expire after one year of its activation. You can easily renew the service for another year paying only taka 100.
7. Blue Card will continue to extend its service area and network. Your loved ones/employees/clients/well-wishers will enjoy the extended functionality or service area as soon as they are made available.

HOW ARE WE ENSURING SERVICE OF OUR CUSTOMERS
1. We will give you a card and a booklet containing addresses, phone numbers and names of different types of affiliated outlets spread across Dhaka city. The booklet will also contain the outlet-specific amount of discount you can avail by using Blue Card.

2. The registration confirmation SMS will also give you a link to download an associated app for free. This app will allow you to locate any of the affiliated outlets within 3 kilometer distance from your position in Dhaka city. If you press any of the icons displayed on your screen, you could navigate yourself up to the outlet, know the distance and how much time will it take for you to reach there, the outlet’s phone number, their address, the amount of discount they are paying to customers etc. If you press on the phone number, your device will automatically call their outlet’s phone number. You could also send us feedbacks through the app on whether you were satisfied by our services or not. Last but not the least, we tried to serve you as best possible.

3. Our website is open to all. By clicking on the outlet category button on home page, you can view a page containing a list of all the outlets we are affiliated with and know about the outlet-specific amount of discount. Also, you’ll find names, phone numbers, addresses and email addresses of the stores. We’ll be uploading the snapshots of the stores and their special products on our website. You’ll find our any new announcement on our website. Moreover, you could join our Facebook page and stay connected with us just by typing “bluecardbd” right after you log in to your Facebook account.

We are trying our level best to ensure ease and benefits of both buyers and sellers and we’ll be doing so on in the future. We are highly eager to note down any sort of logical advices you give us.

ব্লু কার্ডকে জানুন

সব সময়েই আমাদের মনে হয় ফিক্সড প্রাইসড দোকানে গেলে আমি ঠকে যাবো। দোকানদার হয়তো ইচ্ছা মতো কোনো দাম লিখে রেখেছে, আমাকে ধোকা দিচ্ছে বা ঠকাচ্ছে। অন্যদিকে ফিক্সড প্রাইসড দোকানের মালিকেরাও খুব একটা স্বস্তিতে থাকেন না। তারা মনে করেন যে আমি সীমিত লাভে মালটি বিক্রি করবো, সেজন্য প্রকাশ্যে একটা দাম লিখে রেখেছি, তোমার সন্দেহ থাকলে অন্য একটা দোকানে গিয়ে খোঁজ নিয়ে দেখো, যদি তোমার মনে হয় যে এই দামে কেনা উচিত, তাহলে কিনে ফেলো। মার্কেট ইজ ওপেন! দেখা যাচ্ছে, ক্রেতা বা বিক্রেতা কেউই খুব সন্তুষ্ট নয়, কনফিউজডও বটে। আমরা অর্থাৎ ব্লু কার্ড যা করছি, ক্রেতা ও বিক্রেতার মাঝামাঝি একটা প্লাটফর্ম তৈরির উদ্যোগ নিয়েছি। যেখানে ক্রেতা পাবে ফিক্সড প্রাইসড শপ থেকে ডিসকাউন্ট সুবিধা আর বিক্রেতা পাবে দিনে দিনে কাস্টমার বৃদ্ধি পাওয়ার নিশ্চয়তা। ক্রেতা যেন তৃপ্তিবোধ করে যে, এটা ফিক্সড প্রাইসড শপ হওয়া সত্ত্বেও আমি এখানে বিশেষ ছাড় পেতে যাচ্ছি। তাই আমি আর অন্য কোনো দোকানে যাবো না। দোকান মালিকও চায় তার কাস্টমার বারবার তার দোকানেই আসুক। ব্ল কার্ডের কারণে উভয়পক্ষ লাভবান হচ্ছে দুই ভাবে..

এক. ১০০০টি ফিক্সড প্রাইসড শপ থেকে ক্রেতা ডিসকাউন্ট পাচ্ছে।
দুই. যে দোকানগুলো ব্লু কার্ডের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছে, অন্য সব দোকান বাদ দিয়ে ব্লু কার্ড হোল্ডাররা শুধু সেই দোকানগুলোতে যেতে আগ্রহী থাকবেন। ফলে দোকান মালিকরা পাচ্ছেন অনেক ক্রেতা। আমরা যা করছিÑ হসপিটাল, ফ্যাশনশপ, ফার্মেসি, রেস্টুরেন্ট, বিউটি পারলার, ইলেকট্রনিকস ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ পুরো ঢাকা শহর জুড়ে আপাতত ১ হাজারেরও বেশি ফিক্সড প্রাইসড দোকানের সাথে চুক্তিবদ্ধ হয়েছি। কোনো ক্রেতা ব্লু কার্ড নিয়ে তাদের দোকানে এলে বিক্রেতা তার ঘোষণা দেওয়া নির্দ্দিষ্ট পরিমাণ ডিসকাউন্ট ক্রেতাকে দেবে। কার্ডের সাথে পাওয়া বুকলেটে এবং আমাদের অ্যাপ-এ এগুলো সম্পর্কে বিস্তারিত দেওয়া আছে। আমাদের ওয়েবসাইটেও আমরা এসব তথ্য রেখেছি। ব্লু কার্ড ব্যবহারকারী যেনো খুব সহজে তার প্রয়োজনীয় আউটলেট খুঁজে পায় এবং আউটলেট সম্পর্কিত প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো পায়, সেই সব ব্যবস্থা রাখা হয়েছে অ্যাপটিতে। মোটামুটিভাবে আপনার বাসা ভাড়া ও সন্তানের পড়াশোনার খরচের বাইরে আপনাকে যে যে খাতে সারা মাস খরচ করতে হয়, আমরা তার সবকিছু রাখার চেষ্টা করেছি। মোট ৩৭ ক্যাটেগরির আউটলেটের সাথে চুক্তি করেছি। সংখ্যাটি আরো বাড়ানোর প্রক্রিয়া অব্যাহত আছে। ইতিমধ্যেই নারায়নগঞ্জ, সাভার ও গাজীপুরকে ব্লু কার্ডের আওতায় আনা হয়েছে। সেখানকার সুনির্দ্দিষ্ট আউটলেটগুলোতে ব্লু কার্ড পাওয়া যাচ্ছে। ২০১৯ সালের মধ্যে পুরো বাংলাদেশকে ব্লু কার্ডের আওতায় আনার কাজ পুরোদমে চলছে।

ব্লু কার্ড ব্যবহার করলে যে সুবিধা পাবেন
আউটলেট মালিকরা তাদের ব্যবসায়িক সুবিধামতো একেকজন একেক পরিমাণ ডিসকাউন্ট দিতে সম্মত হয়েছেন। কেউ ৫%, কেউ ১০%। কেউ ১৫%, আবার কেউ ২০%। যদিও এর চেয়ে কম এবং বেশি ডিসকাউন্ট দেওয়ার চুক্তিও করেছি। গড়পরতা ১০% ডিসকাউন্ট ধরে নেওয়া যায়। ধরা যাক, ব্লু কার্ড কেনার পর পরই, ১০% ডিসকাউন্ট দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছে এমন একটি দোকানে আপনি ২০০০ টাকার শপিং করলেন। তাহলে আপনি শুরুতেই পেয়ে যাচ্ছেন ২০০ টাকা পরিমাণ ডিসকাউন্ট। অর্থাৎ, যতো টাকা দিয়ে আপনি ব্লু কার্ডটি কিনলেন, শপিংয়ের প্রথম দিনই আপনি পেয়ে যাচ্ছেন সেই পরিমাণ টাকা ডিসকাউন্ট। বাকি বছর ১০০০টি আউটলেটে যা কেনাকাটা করবেন, তার ওপর ডিসকাউন্ট পেতেই থাকবেন। মধ্যবিত্ত ও নিম্মমধ্যবিত্ত ফ্যামিলিতে জামা-কাপড় কেনা, রেস্টুরেন্টে খাওয়া, হসপিটাল বিল ও অন্যান্য কেনাকাটার জন্য মাসে গড়ে ১০ হাজার টাকা খরচ করতে হয় না এমন পরিবার খুব কমই আছে। অর্থাৎ বছরে গড়ে ১ লাখ ২০ হাজার টাকার কেনাকাটা করে না এরকম পরিবারের সংখ্যাও বিরল। অথচ মাত্র ২০০ টাকা দিয়ে ব্লু কার্ড কিনে ব্যবহার করলে ১ বছরে আপনি অনায়াসে সাশ্রয় করতে পারবেন ১০/১৫ হাজার টাকা।

যেভাবে ব্লু কার্ডের রেজিস্টার্ড গ্রাহক হবেন
১. আপনার মোবাইল ফোনের মেসেজ অপশনে গিয়ে বড় অক্ষরে লিখুন ইখটঊ ঙঘ (স্পেস দিন)
২. কার্ডে দেওয়া ১৬ ডিজিট নাম্বারটি টাইপ করুন (স্পেস দিন)
৩. নিজের সংক্ষেপ নাম লিখুন (যেমন: আশফাক)
৪. এবারে পাঠিয়ে দিন ২৬৯৬৯ নাম্বারে
৫. আপনার ফোনে রেজিস্টেশন কনফার্মিং মেসেজ আসবে। ৫ মিনিটের মধ্যে
৬. সমস্যা অনুভব করলে কল দিন ০৯ ৬৬৬ ৭২৪ ৭২৪ (সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে)
৭. আমাদের ওয়েবসাইট বা ফেসবুক পেজের সাহায্যও নিতে পারেন (সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টার মধ্যে)
৮. মেইল করতে পারেন পঁংঃড়সবৎ@নষঁবপধৎফনফ.পড়স পড়সঢ়ষধরহ@নষঁবপধৎফনফ.পড়স
৯. আপনার কার্ড অ্যাকটিভেট হওয়ার পর থেকে পরবর্তী ১ বছর ডিসকাউন্ট সুবিধা পাবেন। আপনার কার্ড অ্যাকটিভেট হওয়ার ১১ মাস পর একটি এসএমএসের মাধ্যমে কার্ডের মেয়াদ শেষ হওয়ার বার্তা জানানো হবে। আপনি যদি ব্লু কার্ড সেবা নবায়ন করতে আগ্রহী হন তাহলে আর ২০০ টাকা নয়, আমাদের নাম্বারে মাত্র ১০০ টাকা পাঠিয়ে দেওয়ার বিনিময়ে আপনি হতে পারবেন পরবর্তী ১ বছরের জন্য ডিসকাউন্ট সুবিধাভোগী।

কিভাবে ব্লু কার্ড পাবেন
ব্লু কার্ড নামের এই ডিসকাউন্ট কার্ডটি গত ১৪ জুলাই ২০১৮ একটি সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে বাজারে এসেছে। আমাদের সেলসম্যানরা পুরো ঢাকা শহরে তো বিক্রি করছেই, আপনি তাদের দেখা না পেলে ০৯ ৬৬৬ ৭২৪ ৭২৪ এই নাম্বারে ফোন দিয়ে সংগ্রহ করার উপায় পেতে পারেন। এছাড়াও পুরো ঢাকা শহরে বর্তমান ২৭টি পয়েন্টে আমাদের কার্ড বিক্রি হচ্ছে। আপনার ই-মেইল অ্যাড্রেস পাঠালে আমরা আপনাকে সবগুলো সেলসপয়েন্টের ঠিকানা পাঠাবো। ভবিষ্যতে আমরা ১০০টি পয়েন্ট থেকে ব্লু কার্ড বিক্রি করতে পারার জন্য কাজ করে যাচ্ছি। পাশাপাশি আগামীতে অনলাইন অর্ডার দিয়েও যেনো আপনি কার্ডটি সংগ্রহ করতে পারেন, সেজন্য আমরা কাজ করে যাচ্ছি। আপনার পকেটে ২০০ টাকা থাকলে এবং ব্লু কার্ড ব্যবহার করার ইচ্ছা থাকলে কতো সহজে আপনার কাছে তা পৌঁছে দেওয়া যায়, আমরা নিরন্তর সেটার ওপর কাজ করে যাচ্ছি। আপনারা আমাদের পাশে থাকুন।

কর্পোরেট সেলস
বাজারে আত্মপ্রকাশ করার ১৫ দিনের মধ্যে আমরা কর্পোরেট সেল শুরু করেছি। বিভিন্ন কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠান আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছে আমাদের কার্ড কেনার জন্য। আমরা তাদের কাছে কৃতজ্ঞ। আরো কিছু প্রতিষ্ঠানের সাথে আমাদের কথাবার্তা চলছে। প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী বা বিশেষ দিবস উপলক্ষে প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের মধ্যম আয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারিদের শুভেচ্ছা কার্ড দেওয়ার বদলে ব্লু কার্ড উপহার দিচ্ছে। যা দিয়ে তারা সারা বছর ডিসকাউন্ট সুবিধা পাবে। বিশেষ কোনো দিবস উপলক্ষে কোনো প্রতিষ্ঠান ৫শর বেশি কার্ডের অর্ডার দিলে আমরা আমাদের ব্লু কার্ডে সেই দিবসের বাণী এবং সেই প্রতিষ্ঠানের লোগো দিয়ে দিচ্ছি। আলোচনার ভিত্তিতে অন্যান্য সুবিধাও দিচ্ছি।

বিশেষ দিবসের ব্লু কার্ডের একটি নমুনা দেওয়া হলো:

আগামী ২ বছরের মধ্যে শুভেচ্ছা-কার্ড বলে কিছু থাকবে না
যে কোনো বিশেষ দিবস উপলক্ষে আমরা আমাদের প্রিয়জনদের শুভেচ্ছা কার্ড দিয়ে থাকি। পেয়েও থাকি। প্রিয়জনকে শুভেচ্ছা কার্ড দিয়ে আমরা আনন্দ পাই। প্রিয়জনের কাছ থেকে শুভেচ্ছা কার্ড পেলেও আমাদের ভালো লাগে। বিশ^ জুড়ে কার্ডের এই আদান-প্রদানের প্রচলন অনেক পুরনো। বর্তমানে বিভিন্ন বিশেষ দিবস উপলক্ষে অনেক বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানও তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারী, ক্লায়েন্টদের শুভেচ্ছা কার্ড দিয়ে থাকে। এই শুভেচ্ছা কার্ড সম্পর্কে ব্লু কার্ডের নিজস্ব কিছু পর্যবেক্ষণ আছে। আশা করছি আমাদের পর্যবেক্ষণগুলোর সাথে আপনি দ্বিমত পোষণ করবেন না।

১. একটি সাধারণ মানসম্মত শুভেচ্ছা কার্ডের দাম ব্লু কার্ডের চেয়ে বেশি
২. বিশিষ্ট ব্যাক্তির কাছে পৌছাতে আরও বাড়তি খরচ যোগ হয়
৩. বিশেষ দিনটি পেরনো মাত্র শুভেচ্ছা কার্ডটি তার উপযোগিতা হারিয়ে ফেলে
৪. অধিকাংশ ক্ষেত্রে কার্ডগুলো বোঝা হয়ে দাড়ায়

যে যে কারণে আপনি শুভেচ্ছা কার্ডের বদলে ব্লু কার্ড ব্যবহার করতে পারেন
১. একটি সাধারণ মানসম্মত শুভেচ্ছা কার্ডের চেয়ে ব্লু কার্ডের দাম কম
২. করপরেট প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে আমরা আমাদের ডিসকাউন্ট কার্ডে বিভিন্ন দিবসের শুভেচ্ছাবাণী আপনার প্রতিষ্ঠানের লোগোসহ দিয়ে দিচ্ছি
৩. যাকে আপনি কার্ডটি দিচ্ছেন, বিশেষ দিবসটি পার হওয়ার পরও তিনি এর উপযোগিতা উপভোগ করবেন
৪. কার্ড প্রাপকের কাছে এই কার্ডটি কখনই বোঝা হয়ে দাড়াবে না। আপনার হাতের অ্যান্ড্রয়েড ফোনের মাধ্যমে সহজতম উপায়ে ডিজিটালাইজ করে ব্যবহার করতে পারবেন
৫. এক বছর ধরে ঢাকা শহরের প্রায় ১০০০ আউটলেট থেকে ডিসকাউন্ট নিতে পারবেন
৬. এক বছর পর মেয়াদ শেষে মাত্র ১০০ টাকা দিয়ে পরবর্তী ১ বছরের জন্য রিনিউ করে নিতে পারবেন
৭. ব্লু কার্ড নিয়মিত তার সেবা পরিকাঠামো বাড়াতে থাকবে। ফলে আপনার প্রিয়জন/এমপ্লয়ি/ক্লায়েন্ট/শুভানুধ্যায়ী সে সব বর্ধিত সুবিধারও অংশীদারী হতে থাকবেন

যেভাবে আমরা ক্রেতার সেবা নিশ্চিত করছি
১. প্রতিটি কার্ডের সঙ্গে আমরা বিনামূল্যে দিচ্ছি একটি বুকলেট। যেখানে আপনি পাচ্ছেন সমগ্র ঢাকা শহর জুড়ে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বিভিন্ন ধরনের ১০০০টি আউটলেটের নাম ঠিকানা ফোন নাম্বার মেইল অ্যাড্রেস এবং দোকানটিতে গেলে আপনি কতটা ডিসকাউন্ট পাচ্ছেন তার স্পষ্ট বিবরণ।

২. আপনার রেজিষ্ট্রেশনের কনফার্মেশন এসএমএস এর সাথে আপনি পাচ্ছেন একটি ফ্রি অ্যাপ ডাউনলোড করার অনুরোধ। অ্যাপটি ব্যবহার করলে আপনি ঢাকা শহরের যে জায়গাতেই থাকেন না কেন, সিঙ্গেল বাটন প্রেস করেই দেখে নিতে পারবেন সেই মুহূর্তে আপনার ৩ কিলোমিটার এলাকার মধ্যে কোন কোন প্রতিষ্ঠানে ব্লু কার্ড একসেপ্ট করা হয়, দোকানগুলোর ঠিকানা, আপনার বর্তমান অবস্থান থেকে দোকানগুলোর দূরত্ব কতো, হেঁটে যেতে কতোক্ষণ লাগবে এবং সেখানে গেলে আপনি কি পরিমাণ ডিসকাউন্ট পাবেন। আপনি যে আউটলেটে যেতে চান, সেই আউটলেটের ফোন নাম্বারও দেওয়া আছে। নাম্বারটিতে আঙুল স্পর্শ করলেই কল চলে যাবে তৎক্ষণাৎ। অ্যাপের মাধ্যমে আপনাকে দোকানটিতে যাওয়ার রাস্তাও দেখিয়ে দেওয়া হবে। দোকানটিতে গিয়ে আপনি সন্তোষজনক সেবা পেলেন কিনা সেটাও আমাদেরকে অবহিত করতে পারবেন। আপনার প্রয়োজনীয় সব সেবা অ্যাপটিতে দেওয়ার চেষ্টা করেছি আমরা। সবসময় আমাদের চেষ্টা থাকবে আপনাদের আরো সেবা যুক্ত করার।

৩. সবার জন্য এই ওয়েবসাইটটি উন্মুক্ত। হোম পেজের আউটলেট ক্যাটাগরি বাটনটি ক্লিক করলে যেসব প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে আমরা ডিসকাউন্ট পাওয়ার চুক্তি করেছি তাদের প্রত্যেকের সম্পর্কে আলাদা করে জানতে পারবেন। তাদের দোকানের নাম ঠিকানা ইমেইল ফোন নাম্বার জানতে পারবেন। আমরা পর্যায়ক্রমে সব দোকানের ছবি এবং স্পেশাল প্রডাক্টের ছবিগুলো আপলোড করার কাজ চালিয়ে যাচ্ছি। আমাদের যে কোনো নতুন ঘোষণা ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। এছাড়াও আপনারা আমাদের ফেসবুক পেজে জয়েন করে আমাদের সাথে সংযুক্ত থাকতে পারেন। আপনার ফেসবুক অ্যাকাউন্টে ঢুকে টাইপ করুনÑ নষঁবপধৎফনফ

আমরা আমাদের সাধ্যের সবটুকু দিয়ে চেষ্টা করছি ক্রেতা ও বিক্রেতার স্বার্থ সংরক্ষণ করতে এবং আগামীতেও আমাদের এই চেষ্টা অব্যাহত থাকবে। আপনাদের দেওয়া যে কোনো যৌক্তিক পরামর্শ আমরা বিবেচনায় রাখতে আগ্রহী।